ফারাক্কার পর টিপাইমুখ ড্যাম নির্মাণের হটাকারী সিদ্ধান্তে মরুভূমির পথে তৃষ্ণার্ত বাংলাদেশ । বিপন্ন মানবতার পাশে দাঁড়াতে হবে এখনই।


https://i1.wp.com/www.thedailystar.net/photo/2010/01/04/2010-01-04__f01.jpg

পোস্ট নিয়মিত আপডেট হবে। প্রকাশিতব্য ই-বুকের জন্য লিংক দিয়ে সহায়তার করার জন্য ব্লগারদের আহবান করা যাচ্ছে

টিপাইমুখ ড্যাম সংক্রান্ত বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ লেখার লিংক

আবারও টিপাইমুখ
ভারতীয় পানি আগ্রাসন ফারাক্কা থেকে টিপাইমুখ
ফারাক্কার কথা ভাবতে গিয়ে আমার অবাক লাগে
টিপাইমুখ নিয়ে নতুন বিতর্ক
প্রকৃতি ও মানববিরোধী বাঁধ টিপাইমুখ
টিপাইমুখ বাঁধ ও আমাদের করণীয়
আমাদের মুখে তালা, হাতে পায়ে শেকল কেন?
টিপাইমুখ বাঁধ নিয়ে বরাকবাসীর ভাবনা

বলতে চাইছি ফারাক্কার পর সবথেকে আশংকার জন্ম দেয়া টিপাইমুখ ড্যাম এর কথা। ফারাক্কা নিয়ে হাহুতাশ করতে করতে আমরা যে মরুভূমির উত্তপ্ত বালুকাবেলায় শুয়ে আছি ঠিক সেখানেই বুকের উপর জগদ্দল পাথরের মতো চেপে বসতে যাচ্ছে টিপাইমুখ।

সবাইকে হাসিয়ে গত বছরের জুলাই মাসে বাংলাদেশের একটি সংসদীয় প্রতিনিধি দল যখন টিপাইমুখ বাঁধ দেখতে গিয়েছিল তখন আশঅর বাণী শুনানো হয়েছিল ভারত এমন কিছু করবে না যাতে বাংলাদেশের ক্ষতি হয়। বাংলাদেশের সব মানুষকে হাসিয়ে অনেকটা সাবান চুরির সময় কাকের চোখ বন্ধ রাখার মতো খোড়া যুক্তি দেয়া হয় মিডিয়াতে আমাদের সম্মানিত প্রতিনিধি দলটি নাকি দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে ২৯ জুলাই (২০১০) টিপাইমুখ বাঁধের নির্মাণাধীন এলাকায় যেতেই পারেনি। আসলে তারা যেতে পারেননি না ইচ্ছে করেই তাদের প্রভুর সন্তুষ্টি অর্জন করে পাঁচতারা হোটেলের ঠাণ্ডা ঘরে মুরগীর ঠ্যাং চিবিয়ে জাতিকে সম্ভাব্য বিপদের মুখে ঠেলে দিয়েছেন কিনা আল্লাহ মালুম। তারা যখন বাংলাদেশে ফিরে এসে বলেছিলেন ভারত টিপাইমুখে কোনো বাঁধ নির্মাণ করছে না দেশের শতকরা নব্বইভাগ মানুষই তাদের এই মিথ্যাচার বিশ্বাস করেনি। যার সাক্ষ্য আমরা পেলাম ভারতের নর্থ-ইস্টার্ন ইলেকট্রিক পাওয়ার করপোরেশন লিমিটেডের চেয়ারম্যান তথা ম্যানেজিং ডিরেক্টর প্রেমাচান্দ পংকজ এর ভাষ্যে । তিনি গত ১১ জুলাই স্থানীয় একটি সংবাদ সংস্থার সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন যে, টিপাইমুখে বরাক নদীতে প্রস্তাবিত জলবিদ্যুৎ প্রকল্প বাস্তবায়িত হবেই। তিনি জানান, প্রস্তাবিত ১৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনক্ষম টিপাইমুখ প্রকল্পের কাজ যথারীতি এগিয়ে নেয়া হবে (আমার দেশ, ১২ জুলাই, ২০১১)।

পদলেহী প্রথম আলো বরাবরের মতো দেশের সর্বনাশের সময় চুপ থাকার ঐতিহ্য বেশ যত্নের সাথে লালন করে আসলেও এই দু:সংবাদ দেশের প্রায় প্রতিটি দৈনিকে প্রেমাচান্দের এই বক্তব্য ছাপা হয়েছে। প্রসঙ্গত বলে রাখা ভাল ভারতের মনিপুর রাজ্যের চোরা-চাঁদপুর জেলার তুইভাই ও বরাক নদীর সঙ্গমস্থলে টিপাইমুখ বাঁধটির নির্মাণ কাজ আগামী ২০১২ সালের মধ্যে শেষ হবার কথা। শুধু বাংলাদেশেই নয়। খোদ আসাম ও মনিপুরের বিভিন্ন পরিবেশবাদী সংগঠন এই বাঁধ নির্মাণের বিরোধিতা করছে। তারা মনে করছেন এই প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে সংশ্লিষ্ট এলাকায় পরিবেশে ব্যাপক প্রভাব পড়বে। ফলস্বরূপ অর্থনৈতিকভাবেও বিপন্ন হয় পড়বে এলাকার বাসিন্দারা। ভারতের পরিবেশবাদীরা এই প্রকল্পের বিরোধিতা করলেও, আসামের মুখ্যমন্ত্রী তরুণ গটস বলেছেন বৃহৎ নদী বাঁধ যেকোনো মূল্যে হচ্ছেই। কেউ বাঁধের কাজ আটকাতে পারবে না। এখন মুখ্যমন্ত্রী গটস কিংবা প্রেমাচান্দের বক্তব্যের পর এটা স্পষ্ট হয়ে গেল যে, টিপাইমুখ বাঁধ হচ্ছেই।
টিপাইমুখের প্রভাবে আমাদের দেশের যে পরিবৈশিক বিপর্যয় ঘটবে তার রুখে দাড়াতে সোচ্চার হোন এখনই। প্রকাশিতব্য ই-বুক এর জন্য আপনার লেখা আর বিভিন্ন তথ্যসুত্রের লিংক দিয়ে সহায়তা করুন।
বাংলাদেশের দুর্বল নেট কানেকশান এর কথা বিবেচনা করে সবার অংশগ্রহন নিশ্চিত করতে এই পোস্ট কেটে ছোট করে দেয়া হল। অনুরোধ করছি কেউ বিশালাকার মন্তব্য কিংবা ছবি সহ মন্তব্য আপলোড করবেন না। করলে তা মুছে দেয়া হবে। দেশের বৃহত্তর স্বার্থে এখানে সবার অংশগ্রহন জরুরী।

ই-বুকের জন্য আপনার লেখা পাঠানো ও যে কোন ধরণের উপদেশ পরামর্শ দিতে যোগাযোগ করুন।
aurnabmaas@gmail.com
 

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s