ইতিহাসের এ কি ধারা ?????


কিছুদিন আগে থেকে  ইউরোপের ইতিহাস নিয়ে কাজ করতে শুরু করেছি। কিন্তু  পড়ালেখা যতো বেশি করছি ঘেন্নায় মুখ যে তেতো হয়ে আসে।

শ্লার হারামি ইউরোপীয়রা ইতিহাসে খালি ক্যাথলিক মৌলবাদ, মানুষ খুন রাহাজানি বাদে আর কিছুই করে নাই। সমাজ-সংস্কৃতি নিয়ে কি তাদের কিছুই করার সুযোগ আসে নি।
অবাক হই এই ইউরোপের ইতিহাস নিয়ে আমাদের দেশের কিছু আবুল টাইপের শুশীল নাচন-কুদন করে নিজেদের আধুনিক ভাবে। ইউরোপে যে কাহিনী ঘটেছে উনিশ শতকের গোড়াতে বাংলার সুলতানী আমলেই সেই সেকুলারিজম বিকাশ লাভ করে।

আসলে ইউরোপের প্রজেক্ট বাগাতে গেলে তো আর এই সত্য বলা চলে না। ওখানে তো আর বলা চলে না যে আমাদের দেশে ২৫০০ বছরের পুরাতন নগরের চিহ্ন আছে। আমাদের দেশের প্রাগিতিহাস আছে। মুদ্রাভিত্তিক অর্থনীতি বিকাশের প্রমাণ আছে। আছে টাকশাল নগরী গড়ে ওঠার প্রমাণ। 

কিছু ছাগল কিছু না বুঝে নিজেদের নারীবাদী প্রমাণ করতে চিৎকার ম্যাৎকার শুরু করে।
বাহ বলিহারি যাই ওদের ঢং দেখে।
বলি ও আবুল ওরে কুদ্দুস।
তোমরা যে মার্কস এঙ্গেল নিয়া মূর্তিমান আতংক হিসেবে আবির্ভূত হইয়াছ তাহাদের ব্যাকগ্রাউণ্ড কি ??
ফ্রান্স থেকে শুরু করো …..
বুরবোঁ রাজবংশ…………
হহাহাহাহাহাহা সেই একই কাহিনী

হেনরি দ্য ন্যাভারে থেকে শুরু করে সেই দোর্দণ্ড প্রতাপ চতুর্দশ লুই এইসব সারকোজির পূর্বপুরুষ ঠিক তাই করেছে যা উনি এখন করছে।
তারা বিয়ে করতো সাম্রাজ্য বৃদ্ধি করার জন্য। আর নারীদের কাছে রাখতো বাসনা চরিতার্থ করার জন্য।
খ্রাপ লাগে ঐ মারিয়া থ্রেসার জন্য। যারা বাপের সাম্রাজ্য টিকিয়ে রাখতে সন্ধির বলি হয়ে মহাশত্রুর সাথে চলে যেতে বাধ্য হয়েছিলেণ। পরে উত্তরাধিকারের লড়াইয়ে তাকেই আবার ঢাল বানানো হয়। একজন সন্তানের জন্ম দিলেও মাতৃত্বের অধিকার তিনি পাননি। ঐ সন্তান হয়ে গেছে আরেক রাণির। কারণ পিতৃত্ব বা মাতৃত্বের থেকে ইউরোপে তখন ক্ষমতা আর রাজ্যবিস্তার অনেক জরুরী ছিল।
আর বাংলাদেশ, ভারত বা পাকিস্তানে বাস করেও যারা ইউরোপের উদাহরণ টানে আর নিজেদের বড় বাহাদুর ভাবে আমার মনে হয় প্রত্যেক দেশপ্রেমিক বাংলাদেশী, ভারতীয় কিংবা পাকিস্তানির উচিত ওদেরকে পায়ের চটি খুলে পেটায়। কারণ এই সেই বেইমান যারা কিছু প্রকল্পের লোভে নিজের মায়ের সম্মান পর্যন্ত ধুলায় মেটাতে বসেছে।
ধিক এই সব জ্ঞানপাপী ইতিহাস বিকৃতিকারী নরাধমদের জন্য।

পাব্লিকেশন সিক্রেসি না থাকলে পর্ব অনুযায়ী শেয়ার করার শুরু কর্তাম। 🙂

প্রকাশিত হওয়ার পর করার ইচ্ছে আছে।

Advertisements

13 thoughts on “ইতিহাসের এ কি ধারা ?????”

    1. অনেক অনেক ধন্যবাদ প্রিয় ছোট ভাই রুমান। তুমি অনেকটা ঘাড় ধরে আমাকে ওয়ার্ডপ্রেসে টেনে এনেছো। নাইরে ব্লগস্পটের সাইটে সময় দিতাম। 🙂

  1. বাহ, বেশ সুন্দর ব্লগ তো! কী সুন্দর গোছগাছ করা, ছিমছাম একটা ব্লগ!! প্রত্নতত্ব আর ইতিহাস আপনার প্রিয় বিষয়, তা বেশ বুঝা যায়। ইতিহাস আমার কাছে এক দুর্জ্ঞেয় রহস্য আর প্রত্নতত্ত্ব অপার বিস্ময়! দুটোতে দু’রকমের মজা পাওয়া যায়- ভিন্ন স্বাদ নয়, ত্তবু অন্য রকম!!
    অতি অল্প পরিসরে অনেক কথা বলতে চেয়েছেন, অনেক ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। কিন্তু আমরা যারা ইতিহাসের ছাত্র নই তাদের কাছে হয়ে উঠেছে দুর্বোধ্য। পর্বে ভাগ করে আমাদের মত অজ্ঞদের উপযোগী করে লিখলে খুশি হব।
    শুভ কামনা।

    1. অনেক অনেক ধন্যবাদ আর নিরন্তর শুভকামনা আপনার জন্য। দীর্ঘদিন ব্লগিং ছেড়ে দিয়েছি বলা যায়। এমন একটা সময় ছিল সপ্তাহে ১০ টার উপলে লিখতাম। পত্রিকায় লেখাও বাদ দিতে হয়ে বইয়ের কাজ করতে গিয়ে। বইয়ের কাজ শেষ হলে বিশেষ করে স্যার অনুমতি দিলে যদি কপিরাইটজনিত ঝামেলা না থাকে লেখা শেষার করতে বাধানাই। ভালো থাকবেন ভাইয়।

      1. যাইতোক ভাই আপনার ব্লগ খুজে পাচ্ছি না। গ্যাভাটারে সাইট লিংক নাই কেনো ??

  2. ওয়ার্ডপ্রেস যে পরিমাণ জনপ্রিয়তা পেয়েছে ব্লগস্পট তার অর্ধেকও পায়নি এখনো পর্যন্ত। ব্লগস্পটে ব্লগ সাজাতে হয় HTML এর মাধ্যমে, যার কারণে অনেকে মনের মতো ব্লগ করে নিতে পারেনা ব্লগস্পটে। কিন্তু ওয়ার্ডপ্রেসে HTML এর ধার ধরতে হয়না। এছাড়া সবচেয়ে বড় সুবিধা হচ্ছে- ওয়ার্ডপ্রেসে কমিউনিটি গড়া যায়। যেটা ব্লগস্পটে মোটেও নাই। 🙂

    1. ঠিকই বলেছো রুমান। তা না হলে আমার ব্লগস্পট সাইটটা এতোদিন দুইলক্ষ হিট ছাড়ানোর কথা। মাত্র বাইশ হাজারেই আটকে আছে। 😦

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s