সিগমুন্ড ফ্রয়েড/ফ্রুয়েড


944299_4578045700799_682059028_nসমাজবিজ্ঞান কিংবা নৃ-বিজ্ঞানের তত্ত্বগুলো যাঁরা পড়েন, পড়তে চেষ্টা করেন কিংবা আগ্রহী তাদের খুবই পরিচিত একটি নাম সিগমুন্ড ফ্রুয়েড। অনেকে ফ্রুয়েডের তত্ত্ব না বুঝে মার্গারেট মিড বা সাপিরের যুক্তিগুলোর সাথে তাল তাকিয়ে জটা ধরিয়ে উপস্থাপন করেন সংস্কৃতি ও ব্যক্তিত্বের সাথে। সেটা ভিন্ন কথা। তবুও সাইকোএনালিসিস বা এই জাতীয় তত্বের ক্ষেত্রে ফ্রুয়েড অনন্য। তিনি নৃ-বিজ্ঞান গবেষকদের হৃদয়ে ছিলেন, আছেন ও থাকবেন।

ফ্রুয়েড সম্পর্কে উইকিপিডিয়া বলছে 

সিগমুন্ড ফ্রয়েড (জার্মান Sigmund Freud যীক্‌মুন্ট্‌ ফ্রয়ট্‌ আ-ধ্ব-ব [ˈziːkmʊnt ˈfrɔʏt]) (মে ৬, ১৮৬৫সেপ্টেম্বর ২৩, ১৯৩৯) ছিলেন একজন অস্ট্রিয় মানসিক রোগ চিকিৎসক এবং মনস্তাত্ত্বিক। তিনি “মনোসমীক্ষণ” (Psychoanalysis) নামক মনোচিকিৎসা পদ্ধতির উদ্ভাবক। ফ্রয়েড “মনোবীক্ষণের জনক” হিসেবে পরিগণিত। তাঁর বিভিন্ন কাজ জনমানসে বিরাট প্রভাব ফেলেছে। মানব সত্বার ‘অবচেতন’, ‘ফ্রয়েডিয় স্খলন’, ‘আত্মরক্ষণ প্রক্রিয়া’ এবং ‘স্বপ্নের প্রতিকী ব্যাখ্যা’ প্রভৃতি ধারণা জনপ্রিয়তা পায়। একই সাথে ফ্রয়েডের বিভিন্ন তত্ত্ব সাহিত্য, চলচ্চিত্র, মার্ক্সবাদী আর নারীবাদী তত্ত্বের ক্ষেত্রেও গভীর প্রভাব বিস্তার করে। ফ্রয়েড আত্মহত্যা করে মৃত্যুবরণ করেন। তাঁর চিকিৎসক জানান যে, আত্মহত্যার প্ররোচনায় ধূমপানজনিত কারণে মুখের ক্যান্সারই এর জন্যে দায়ী।

তার সম্পর্কে এক নজরে দেখতে……………..
Born: May 6, 1856, Příbor
Died: September 23, 1939, London
Education: University of Vienna
Movies: Interpretation of Dreams
Parents: Jacob Freud, Amalia Freud

একটি বিপজ্জনক গবেষণা এবং মনোসমীক্ষণিক বাস্তবতা

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s