হারাতে হলো প্রত্নতাত্ত্বিক মাইক এস্টনকেও


urlচলে গেলেন বিশিষ্ট প্রত্নতাত্ত্বিক ও টেলিভিশন ব্যক্তিত্ব মাইক এস্টন। কিছুদিন আগে যাঁর সাথে প্রায় ২০ মিনিটের মতো চ্যাট হয়েছিলো সেই ব্যক্তিটি এমন অসময়ে চলে যাবেন ভাবতেই কেমন অবাক লাগছে। এই রকম বিশ্বনন্দিত একজন প্রত্নতাত্ত্বিক হওয়া সত্ত্বেও তাঁর মধ্যে আমাদের বঙ্গদেশীয় অঘাচণ্ডি মাতবারদের মতো নাক উঁচু ভাব ছিলোনা। টুইটারে তার অনেক পোস্টে বাংলাদেশের সামান্য প্রত্নতত্ত্ব শিক্ষার্থীকে ট্যাগ করতে তার বাধেনি। তাঁর শিক্ষার্থী-সহকর্মী যাদের সাথে অনলাইনে আমার যোগাযোগ হয় প্রায় সবাই শোকে স্তব্ধ। অন্তত এই দীর্ঘকেশী প্রত্নতাত্ত্বিক ব্যক্তিত্বের সম্পর্কে তেমন কোনো হতাশাজনক বক্তব্য শুনিনাই। অন্যদিকে তিনি প্রত্নতত্ত্ব বিষয়টিকে তাঁর মূল্যবান গবেষণা দিয়ে সমৃদ্ধ করে গেছেন। বিশেষত সকল শ্রেণিপেশার মানুষের জন্য প্রত্নতত্ত্ব ছিলো তার কর্মকাণ্ডের মূল প্রতিপাদ্য। এক্ষেত্রে তাঁর কর্মকাণ্ড তাকে ছাড়িয়েছে অনেক আগেই। অক্লান্ত পরিশ্রম করে তিনি নিজেকে নিয়ে গেছেন অন্যরকম এক উচ্চতায়।

সাম্প্রতিক কালের প্রত্নতাত্ত্বিকদের মধ্যে মিডিয়া আর্কিওলজিস্টখ্যাত ফারহাত হুসেন অনেকটা তাঁর মতোই কাজ করে যাচ্ছেন। তবুও এস্টনের তুলনা তিনি নিজেই।

প্রত্নতাত্ত্বিক টনি রবিনসনের সাথে মাইক এস্টন

১ জুলাই ১৯৪৬ সালে তিনি ইংল্যান্ডের Black Country, এর Oldbury তে জন্মগ্রহণ করেন।  প্রথমে Oldbury Grammar School থেকে শিক্ষালাভ শেষ করে University of Birmingham থেকে ভূগোল ও ভূতত্ত্ব বিষয়ে পড়াশোনা করেন। তত্ত্ব ও মাঠকর্মে দুটি ক্ষেত্রেই পারদর্শিতার সাক্ষর রাখা এই প্রত্নতাত্ত্বিক ধীরে ধীরে নিজেকে একজন বিখ্যাত  landscape archaeologist. হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে পেরেছিলেন। অনেকগুলো বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষাদানের পাশাপাশি তিনি  বিগ ব্রাদার খ্যাত Channel 4 টেলিভিশনের Time Team অনুষ্ঠানটিকে 1994 থেকে 2011 পর্যন্ত সঞ্চলন করেন। বিশাল ঝাকড়া চুলের অধিকারী এস্টন অসাধারণ উপস্থাপনা আর প্রাঞ্জল বক্তব্য দিয়ে দ্রুতই বিখ্যাত হয়েছিলেন। আমি তাঁকে প্রথম আবিষ্কার করি ন্যাশনাল জিওগ্রাফিকের একটা অনুষ্ঠানে। পরে ফেসবুকে অনেকটাই ফাইজলামি করেই খুজে পাওয়া।

ঠিভি প্রেজেন্টেশনের এক পর্যায়ে.

তাঁর বিভাগের একজন শিক্ষার্থী ড্যানিয়েল অ্যাডেনসনের কাছ থেকে সেই ফেসবুক আর টুইটার আইডি খুঁজে পাওয়া। তারপর দিলাম খোচানি। দেখি আধাঘন্টার মধ্যেই জবাব। Hey Aurnab! Thanks for your contact. Wish all the best for your. Do archaeology which not just a profession or academics but you have to carry the great duty to find out the privileged ancestors. Really it’s a good experience for me introducing someone form south Asia. সত্যি এই বক্তব্যে অবাক হওয়াটাই স্বাভাবিক।  তিনি অসংখ্য বই লিখেছেন এই প্রত্নতত্ত্ব বিষয়ের উপরেই।

ডিগিং দা ডার্ট অনুষ্ঠানে বাকিংহাম প্যালেসের সামনে, সঙ্গে আছেন রবিনসন।

আমাদের দেশের স্বঘোষিত মহাপণ্ডিতদের মতো দাঁতভাংগা ভাষায় না লিখে তিনি একাধারে পণ্ডিত ও আমপাব্লিক সবার জন্যই লিখেছন। এক কথায় বলতে গেলে প্রত্নতত্ত্বকে জনপ্রিয় করে তোলার জন্য যতটা সম্ভব তিনি করেছেন। অন্যদিকে সৌভাগ্য হিসেবে তিনি জন্মেছিলেন ইংল্যান্ডে, তাঁর দেশটা বাংলাদেশ ছিলনা যেখানে ভালো কিছু করতে গেলে পেছনে থেকে কেউ ঠ্যাং টেনে ধরবে। তাই সত্যি অনেক দূর যেতে পেরেছিলেন মাইক। তাইতো বার্মিংহাম, অক্সফোর্ড, ব্রিস্টল বিশ্ববিদ্যালয়ের অগণিত শিক্ষার্থী যেমন তাকে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করে তেমনি একজন প্রত্নতাত্ত্বিক হিসেবেও জাতিও তাকে গর্বভরে স্মরণ করবে। তিনি নতুন প্রজন্মের প্রত্নতাত্ত্বিকদের জন্য একজন আদর্শ হতে পারেন।

পরীক্ষাগারে আলোচনারত, সাথে আছে অ্যাডানসন আর ফ্রেডরিখ
চ্যানেল 4 এর একটি অনুষ্ঠান ধারণকালে।

বাংলাদেশের কেউ যদি এস্টনকে পাবলিশিং বা ফ্যাশানেশবল আর্কিওলজিস্ট বলে হেয় করতে চায় তাদেরকে বলবো দূরে গিয়া মুড়ি খা। আজীবন ডেকান কলেজের বারান্দা ঝাড়ু দিয়াও এস্টনের লম্বা চুলের একটা ধরতে পারবি না। সবথেকে বড় কথা কারো সমালোচনা করার আগে তার অর্জনকে দেখতে শিখি। আর খাড়া এভারেস্টের মতো উচু নাকটাকে একটু নিচু করি, উহাতেই নিহিত আছে মঙ্গল।

খননকালীন দৃশ্য

শেষ করবো ড্যানিয়েল অ্যাডানসনের স্ট্যাটাসটা কপি পেস্ট করে..

R.I.P Mick Aston. A great archaeologist and a great man. You will be missed. 

Me too.

কয়েকটি বই..

Recreating the Past (2001)

Recreating the Past 

2001

People also search for

মাইক এস্টনের উল্লেখযোগ্য কাজের মধ্যে রয়েছে…

  • Aston, M. and Bond, J., The Landscape of Towns (1976, reprinted with additions 2000).
  • Aston, M. and Lewis, C., The Medieval Archaeology of Wessex (Oxbow, 1994).
  • Aston, M. and Taylor, T., The Atlas of Archaeology (1998).
  • Aston, Michael (1988). Aspects of the medieval landscape of Somerset. Somerset County Council. ISBN 0-86183-129-2.
  • Aston, M., Monasteries (1993), reprinted as Monasteries in the Landscape (2000).
  • Aston, M. Mick’s Archaeology (2000, revised edn. 2002). His professional autobiography.
  • Aston, M., Lewis, C. and Harding, P., Time Team’s Timechester (2000).
  • Keevil. G., Aston, M. and Hall, T., Monastic Archaeology: papers on the study of medieval monasteries (Oxbow, 2001).
  • Robinson, T. and Aston, M., Archaeology is Rubbish – a beginner’s guide (2002).
  • Aston, M., Interpreting the Landscape from the Air (2002).
  • Gerrard, C. with Aston, M., The Shapwick Project, Somerset: A Rural Landscape Explored, Society for Medieval Archaeology Monograph 25 (2007).
Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s