ডি.জে গান্ধি রকস…

1969292_10201466044164633_1707988934_n

আব কারুঙ্গা তেরে সাথ!!
গান্দি বাত
গান্দি-গান্দি-গান্দি-গান্দি-গান্দি বাত।
অহিংসা কারলি বাহত,

ঠাণ্ডি আহে দেখলি বাহাত.
আব চালেগি তেরে সাথ
ডিস্কো চালি সারি রাত
কাছকে পাকাড় মেরে হাত
ইয়ে হুয়ি না আজকি বাত
ইয়ো ইয়ো গান্ধি রকজ।
ইয়ো ইয়ো ইয়ো গান্ধি রকজ। Continue reading ডি.জে গান্ধি রকস…

দালির প্রথম সুররিয়ালিস্ট কর্ম

dfgdgস্পেনের গিরোনা শহরের একটি পুরাকীর্তি বিক্রির দোকানে প্রথম দেখা মেলে দালির আঁকা তৈলচিত্রটির। প্রায় ২০ বছর আগে মাত্র ১৫০ ইউরোয় বিক্রি হওয়া চিত্রকর্মটিকে এখন সালভাদর দালির শিল্পকর্মের অন্যতম নিদর্শন বলে মনে করা হচ্ছে। বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, এটি ১৯২১ সালের দিকে শিল্পীর কৈশোরে আঁকা অনন্য সাধারণ কিছু কাজের একটি। দালির অঙ্কনশৈলীর বিশেষজ্ঞ নিকোলাস দেকার্নেস মনে করেন, এটি দালির প্রথম পরাবাস্তববাদী আট ওয়ার্ক। Continue reading দালির প্রথম সুররিয়ালিস্ট কর্ম

শিল্পকর্ম কেনার আগে

untitledআপনি যখন রঙ-তুলিতে আঁকা কোনো ছবি কেনার কথা ভাববেন, তখন অবশ্যই খেয়াল রাখবেন তা যেন আপনার ঘরের দেয়ালের সঙ্গে মানানসই হয়। বিশেষ করে উদ্ভট এবং বিচিত্র রঙের চিত্রকর্ম কিনে সেটা নিয়ে ঘরের যে কোনো স্থানে চাইলেই টানিয়ে দিতে পারেন না। এতে ঘরের সৌন্দর্যহানি যেমন হয়, তেমনি চিত্রকর্মটির শিল্পমানও হ্রাস পায়। Continue reading শিল্পকর্ম কেনার আগে

আমার ঈশ্বরদীর লিচু বাগানে

12_Litchi+shwardiAnti_010613পাকশী পেপার মিলস, আলহাজ কটন মিল আর বিখ্যাত হার্ডিঞ্জ সেতুর পাশাপাশি দেশের বৃহত্তম রেলওয়ে জংশন ঈশ্বরদীতে। তবে এখন ঈশ্বরদীকে নতুন করে পরিচয় করিয়ে দেয়ার সময় হয়েছে। এসেছে মধুমাস। এ মাসের রক্তিম রসালো ফল লিচু পাকতে শুরু করায় নতুন করে সেজেছে পুরো উপজেলা। কৃষকের মুখে ফুটেছে হাসি আর প্রকৃতিতে যেন সৌন্দর্যের আগুন। কিছুদিন আগে কৃষ্ণচূড়ায় যেমন পুরো বাংলাদেশ লাল হয়েছিল, এখন পাবনা জেলার ঈশ্বরদী লিচুর রক্তিম আভায় রঙিন। রাত জেগে বাদুড় চামচিকার সঙ্গে লড়াই, আর দিনের বেলায় লিচু চোর সামলাতেই ব্যস্ত দিন কাটছে এখন এলাকাবাসীর। Continue reading আমার ঈশ্বরদীর লিচু বাগানে

ঐতিহ্যের কলাই রুটি

TOTA-RAJ-PHOTO-17-02-14-07বাংলাদেশের বেশির ভাগ চরাঞ্চলের পলিমাটিতে কলাইয়ের ফলন ভালো হয়। এখানে ডাল হিসেবে চাহিদা পূরণের পরও অনেক কলাই উদ্বৃত্ত থেকে যায়। মানুষ তাদের স্বাভাবিক প্রয়োজন মেটানোর পর সে কলাই বিক্রি করে বাইরের বাজারে। অনেক সময় অতিরিক্ত উত্পাদনের পাশাপাশি বিপণন অতটা সহজ না হওয়ায় উদ্বৃত্ত কলাই নিজেদের খাদ্যতালিকায় স্থান দিতে গিয়ে কলাইয়ের রুটি তৈরির পদ্ধতি আয়ত্ত করে চরাঞ্চলের মানুষ।
বিশেষ করে তাদের পক্ষে গমের আটা কিনে রুটি খাওয়া কিংবা গম চাষ করা কঠিন। অন্যদিকে কলাইয়ের উত্পাদন থাকে পর্যাপ্ত। এর রুটি তৈরি করাও গমের আটার রুটি থেকে অনেক বেশি সহজ। তাই তারা প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় স্থান দেয় এ রুটি। Continue reading ঐতিহ্যের কলাই রুটি

গানের কবি নজরুল

Kazi_nazrul_islamবিদ্রোহ, প্রেম, বিরহ আর তারুণ্যের কবি নজরুল বাংলা গানের ক্ষেত্রে জনপ্রিয় এক নাম। বাংলা সঙ্গীতে সমৃদ্ধির প্রশ্নে এবং সাম্যবাদী সত্তা হিসেবে তিনি আমাদের গানের কবি, বিচরণক্ষেত্রে পরিধি হিসেব করলে তিনি আমাদের প্রাণের কবি। কবির রচিত প্রায় তিন হাজার গানথেকে বিদ্রোহের মাঝে যে ভাঙার আবেগ, অস্বীকৃতির ব্যকুলতা, শেকল ছেঁড়ার প্রবনতা, বাঁধনহারা উদ্যম আর সুরের পৃথিবীর অবস্থান তাকে খুব সহজেই খুঁজে নেয়া যায়। নজরুলের এই পৃথিবী হচ্ছে ছন্দের পৃথিবী, প্রেমের পৃথিবী আর সাম্যবাদী সুরে মানুষের ঐক্যের পৃথিবী। বলতে গেলে নজরুল রচিত সংগীতগুলো বাংলা গানকে পরিপূর্ণতা দিয়েছে। নজরুলের বৈচিত্র্যময় সুর-তাল-লয় ও বিষয়বস্তুর গানের পটভূমি হিসেবে কাজ করেছে এক মহান ঐক্যের ধ্যান এবং গঠনমূলক স্বপ্ন। প্রচলিত শোষণ ভিত্তিক সমাজের ভগ্ন-জীর্ণ-অবক্ষয় জর্জরিত কাঠামোটি ভেঙে ফেলে নতুন কিছু গড়ে তোলার দুর্নিবার উদ্দীপনা রয়েছে নজরুলের গানে। Continue reading গানের কবি নজরুল

বলিউডি বিজ্ঞাপন

o.18565বলিউডি সিনেমায় প্রবল আকালের দিন। পরিচালকদের চরম দুর্বিপাকে তাদের উদ্ধারে এগিয়ে এলো স্বনামখ্যাত এক ইন্দো-কানাডিয়ান অভিনেত্রী। বাংলাদেশের একটি দৈনিকের আবার তিনি ব্রান্ড অ্যাম্বেসেডর যাকে সবাই Sunny Leone নামে চিনে। উনার দোর্দণ্ড প্রতাপের অভিনয় দেখে পুরো ভারত একদিনে দিল্লীর রাস্তা হয়ে গেছে। চারদিকে উন্মাদ অবস্থা দেখে ভারতের সকল ব্রাণ্ড তাদের প্রোডাক্টের নাম এমনকি টিভি কমার্শিয়াল পর্যন্ত এক রেখে কন্ডম উৎপাদন শুরু করলো। টিভি খুললেই তখন বিভিন্ন প্রডাক্টের বদলে কন্ডমের বিজ্ঞাপন দেখা যায়।

কি আপদ…।

ধ্যাত্তেরিকা……..।

আগের একই ডায়লগ…..। প্রোডাক্ট হয়ে গেছে জন্মনিয়ন্ত্রণ সামগ্রী। পড়ার সময় সেগুলোকে কন্ডম হিসেবেই পড়ুন আর দেখুন শ্লোগানে কত্ত মিল।

হইলো কিসু…।

দেখা যাক কোন কোম্পানি কি বলছে তাদের বিজ্ঞাপনে….।

১. প্রথমেই পেপসোডেন্ট: রাত ভার ঢিসুম ঢিসুম।

২. কোলগেট: ইয়ে হ্যায় হামারা সুরাকসা চাক্রা।

৩. নোকিয়া: কানেকটিং পিপল। Continue reading বলিউডি বিজ্ঞাপন

বুড়ো শালিকের ঘাড়ে রোঁ

সুপারস্টার রজনীকান্তের নতুন চলচ্চিত্র কোচাদাইয়ান তামিলনাড়ুর ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রিতে আয়ের নতুন রেকর্ড গড়েছে। মুক্তি পাওয়ার প্রথম সপ্তাহে ছবিটির উপার্জন ছাড়িয়েছে ৪২ কোটি রুপি। চলচ্চিত্রটির প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান এরস এন্টারটেইনমেন্ট সংবাদমাধ্যমে জানিয়েছে ব্লকবাস্টার সূচনার কথা।
রজনীকান্তের আগের অনেক চলচ্চিত্র দক্ষিণ ভারত থেকে শুরু করে পুরো এশিয়ায় ব্যবসা সফল হলেও এবারের ঘটনা আলাদা। দক্ষিণের সবচেয়ে বেশি পারিশ্রমিক নেয়া এ তারকার চলচ্চিত্র মানেই নতুন কিছু, তা আরেকবার প্রমাণ হলো।
২৩ মে দ্বিমাত্রিক ও ত্রিমাত্রিক দুই ধাঁচে এ চলচ্চিত্রটি প্রায় ছয়টির মতো ভাষায় বিশ্বজুড়ে তিন হাজার প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি দেয়া হয়। রজনীকন্যা সৌন্দর্যের পরিচালনায় এ ছবি কেবল ভারত থেকেই ৩০ কোটি রুপি আয় করে। অন্যদিকে বাইরের দেশগুলো থেকে আয় হয়েছে ১২ কোটি রুপি। চলচ্চিত্র বিশেষজ্ঞরা অনুমান করছেন, ছবিটি কেবল দক্ষিণ ভারত থেকেই শতকোটি রুপি আয় করতে সক্ষম হবে। প্রথম সপ্তাহের এ সাফল্যে এরস এন্টারটেইনমেন্টের সিইও জ্যোতি দেশপাণ্ডে অনেকটাই উচ্ছ্বসিত। তিনি বলেন, ‘দীর্ঘ দুই বছরের পরিশ্রম আর ভালোবাসায় সিক্ত হয়ে চলচ্চিত্রটি হাজির হয়েছে দর্শকের সামনে। দর্শক এ ছবি ভালোভাবে গ্রহণ করায় আমাদের পরিশ্রম সার্থক হয়েছে।’ মিডিয়া ওয়ান গ্লোবাল এন্টারটেইনমেন্টের ব্যানারে অস্কারজয়ী এ আর রহমান এ চলচ্চিত্রের সঙ্গীত পরিচালনা করেছেন।

দুর্ভাবনার রাত

noirclaytondouglasএতোদিন ভেবেছি,
এই দুর্ভাবনার শহরে অল্পকিছু
প্রাণি রাত জাগে!!
যাদের,
হৃদয়ে অহেতুক ভ্রান্তিবিলাস।
বদলে গেলো দিন
রাতের পাখিরা এখন আর
সেভাবে শিস দিয়ে ডাকেনা
পেঁচা বাদুরের ডানায় ভর করে
হারিয়ে গেছে শুভ মুহুর্তগুলো।
তাই এখন মানুষের সাথে
মিতালি করে মোবাইল।
তারাও রাত জাগে,
উন্মুক্ত  ফেসবুকের চ্যাটবক্স
বন্ধ থাকেনা মেসেঞ্জারও,
তারপর স্কাইপে, ইয়াহু
আর কত্ত কী !!
নাম বলতেও ভুলে যাচ্ছি
বোধহয়। Continue reading দুর্ভাবনার রাত

কেউ আমাকে বলবেন কি ?

vvvvvvvvvvvঅন্যদিনের তুলনায় অফিস থেকে দ্রুতই ফিরলাম বাসায়। ফেসবুক লগ ইন করতেই দেখি ছবিটা। সত্যি বলতে কি দুটো ছবি আলাদা আলাদা ভাবে দেখার সুযোগ হলেও এমন কোলাজ করে বিদ্রুপ করবে কেউ তা ভাবিনি। একজন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, নন্দিত তারকা, অন্যজন মডেল। বাস্তবতায় মানুষ হিসেবে যুগলবন্দি অবস্থা যে কেউ কল্পনা করতেই পারেন। কিন্তু তাই বলে আমি আপনি সবাই জানি মডেল আরিফ খান কে আর জাফর ইকবাল স্যার কে?

ভাবতে গেলে অবাক হতে হয় দুজন হয়ত শখের বশেই নৌকা চালাতে চেয়েছিলেন। কিন্তু ছবিদুটো তাদের কিভাবে যেনো মিলিয়ে দিলো। কিন্তু কেনো ? একজন বিশ্ববিদ্যালয়ের নন্দিত শিক্ষককে কেনো নৌকার মাঝি হতে হবে। আর তাকে নিয়ে বিদ্রুপই বা কেনো করা হবে ? এই রকম প্রশ্ন করলে তার উত্তর পাওয়ার বদলে মিলবে কিছু গালি। সবকিছুর উর্ধ্বে আসলে রাজনীতি। এর সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও উপস্থাপনা হয়ে গেছে মজ্জাগত। ফলে জাফর ইকবাল স্যারকে টেনে হিড়হিড় করে টেনে নামিয়েছে নৌকার পাটাতনে। তার ওস্তাদ বানিয়ে দিয়েছে মডেল আরিফ খানকে। কি আর করা এতোদিন উনি পুরো জাতিকে নিয়ে উপহাস করেছেন। এখন জাতি !! তাকে উপহাসের পাত্র বানিয়েছে।

অবাক করার কাণ্ড হচ্ছে এই একটি ছবি যতটা হাস্যকর তেমনি অনেকগুলো প্রশ্নের জন্ম দিয়েছে। সবথেকে বড় কথা আমরা এমন কিছু কেনো কারি যা আমাদের চোখে আঙুল দিয়ে আসল জায়গাটা দেখিয়ে দেয়। যেমনটি প্রচার মাধ্যমগত ফয়দা, নৈতিক অবস্থান থেকে শুরু করে স্টান্টবাজির দিব্যতায় জাফর স্যার আর মডেল আরিফ খান কিভাবে যেনো নৌকার মাঝি। এই অবস্থান যে প্রশ্নে জন্ম দিল, কেউ আমাকে বলকে কি এর উত্তর কোথায় পাবো? প্রত্যাশা করি স্যারদের মত মহৎ মানুষদের মনে শুভ বুদ্ধির উদয় হোক, অন্তত তাঁরা যেনো বিশেষ রাজনৈতিক গোষ্ঠীর মিডিয়া স্ট্যান্টে পরিণত না হন।