জায়োনিজম: সংঘবদ্ধ অবস্থান, দখলবাজি আর সমঝোতাই যার মূলমন্ত্র


UZSP_logo_test1অনেক দিন থেকে কোনো পলিটিক্যাল রিসার্স আটিক্যাল পড়া হয়না। গতকাল কি মনে করে অর্ধেক পড়ে ফেললাম সায়েঘ এর লেখা বিখ্যাত প্রবন্ধ Zionist Colonialism in Palestine’ । পড়ে আর যাইহোক ভাবনার বদল হয়নি। উপরন্তু পূর্বতন ধারণাগুলো আরো পাকাপোক্ত হয়েছে। জায়োনিস্ট রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে ইজরাইলের পূর্বসূরীরা তিনটি বিষয়ে সবথেকে গুরুত্ব দিয়েছিলো। সায়েঘ সেগুলোকে বিশ্লেষন প্রসঙ্গে বলেছেন.

It was in order to counteract these peculiar factors of its situation that the Zionist Movement, while defining its ultimate objective at the First Zionist Congress, proceeded to formulate an appropriate practical program as well. This program called for action along three
lines: organization, colonization, and negotiation:। আর এ বিষয়গুলোই নিয়ে দীর্ঘ আলোচনা করলাম শ্রদ্ধাভাজন বড় ভাই জোবায়ের আল মাহমুদ আর কমপ্লান বয় রাসেলের সাথে।

দীর্ঘ আলোচনার সারমর্ম হিসেবে এটুকু বলা যায় যে জিওনিস্ট রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার পটভূমি হিসেবে পরিচিত মুখস্থ বুলি আওড়ানো বোদ্ধারা যে কথা বলে আসছেন সেটা পুরোটাই ভূয়া। অর্থাৎ মৌলবাদী জায়ন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার সাথে জার্মানি কিংবা হিটলারের সংশ্লিষ্টতা তেমন নাই। এগুলো মার্ক্সবাদীরা বলেন আবেগ থেকে, বুদ্ধিবৃত্তিক ছাগলগুলো বলে তাদের জ্ঞানতাত্ত্বিক দৈন্য থেকে আর তারা বলেন যাদের মধ্যে অহেতুক ডায়ালেকটিক্সের রোমান্টিকতা কাজ করে।

অন্যদিকে মনের খেদ ঝাড়তে ইসলামিস্টরাও হিটলারকে জাতে তুলে দেন। কিন্তু তারা এটা জানেন না কিংবা শিকার করেন না যে অন্তত কয়েক হাজার তুর্কি মুসলমানকেও হত্যা করেছিলো জার্মান পিশাচ বাহিনী। সি বেগার নামে পরিচিত অভিবাসী রাজ্যহারা মুরকে হত্যা করে তাদের স্ত্রী-কন্যাদের নির্বিচারে ধর্ষণও করেছিলো জার্মান পিশাচগুলো। কিন্তু ইহুদিদের উপর অতিরিক্ত রাগ থেকে মাওলানারা সেগুলো ভুলে যান।

সমঝোতা কিংবা ক্যাপিটাল বৃদ্ধিকে জায়নবাদীরা প্রথম সবথেকে গুরুত্ব দিয়েছে। ফ্রাঙ্ক সম্রটা শার্লামেনের সময় থেকেই তারা এটাকে কাজে পরিণত করেচে। তারপর আস্তে আস্তে মুলধন আর জ্ঞানের দিক থেকে দাদাগিরি করার ক্ষমতা অর্জন করার সাথে তাদের পূর্বতন সন্ত্রাসবাদী চরিত্র প্রকাশ পেয়েছে। তাদের মূল চিন্তা ছিলো হয় আমেরিকা নয়তো আর্জেন্টিনাতে তাদের নিজস্ব ভূখণ্ড গড়ে তুলবে। আমেরিকার চতুর নীতিনির্ধারকরা তাদের পাত্তা দেয়নি।

অন্যদিকে জেরুজালেমকে কেন্দ্র করে রাষ্ট্র গঠিত হলে তারা তাদের পুরাতন শত্রু মুসলমানদের একহাত নিতে পারবে এই উদ্দেশ্য ইহুদি র‌্যবাইরাও মেনে নেয় এই সিদ্ধান্ত। ব্যস শুরু হয়ে যায় হাজার বছরের পরিকল্পনা আর সিদ্ধান্তকে কাজে পরিণত করা। প্রতিষ্ঠিত হয় সন্ত্রাসবাদী রাষ্ট্র ইজরাইল। নিজেদের ভূখণ্ডকে নিষ্কন্টক করতে তারা একের পর এক আক্রমণ চালাতে থাকে পশ্চিম তীর, রামাল্লা কিংবা গাজা উপত্যকায়। মুসলিম নারী-পুরুষ-শিশুর রক্তের পিপাসা তাদের আরো বেড়ে যায়। বিশ্বব্যাপী ইজরাইল পন্থী অনেকগুলো সেকুলার ভাঁড় তৈরি হয়। আদতে তারা জায়নবাদের কট্টর সমর্থক, পোশাকীভাবে তারা হয় ধর্মনিরপেক্ষ। এরা খ্রিস্টান কিংবা মুসলমানের পাশাপাশি অন্য জাতিসত্তার উপর জায়নবাদীদের চড়াও হওয়ার পথ মসৃণ করতে চেষ্টা করে।

পরিস্থিত বদলে যায় যখণ জায়নবাদীরা তাদের স্ট্রাটেজি বদলায়। তখন তাদের নতুন তিনটি উদ্দেশ্য নির্ধারিত হয়। এখানে তারা সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে কিভাবে বিশ্বের জন্য জাতিগুলোর উপর ছড়ি ঘুরানো যাবে। একটু খেয়াল করলে তাদের তিনটি দিক স্পষ্ট হবে–

(1) Racial complexion and racist conduct pattern.

(2) Addiction to violence.

(3) Expansionist stance.

বিষয়গুলোকে যদি কেউ সহজ বাংলায় বুঝে থাকেন তাহলে আর নতুন করে জায়নবাদী পলিসি তাদের বলতে হবেনা। তিনটি কথায় বললে এখনকার জায়নবাদের মূলমন্ত্র হচ্ছে বর্ণবাদ, সংঘাত আর সম্প্রসারণবাদ। মহান তাত্ত্বিক আমার দৃষ্টিতে বিশ্বসেরা সাহসী লেখক সাইদ এগুলো নিয়ে তার পোস্ট কলোনিয়াল কাউন্টার ডিসকোর্সেই বলে গেছেন। ফলে এটা নতুন করে বলার কিছু নাই।

দ্রুতই এই বিষয়ে সিরিজ হিসেবে কয়েকটা লেখার আশাবাদ জ্ঞাপন করছি। বিষয়গুলো ধারাবাহিকভাবে তুলে ধরার চেষ্টাও করবো। সম্ভব হলে পাঠক চাহিদা বিবেচনায় বিস্তৃত পরিসরে গ্রন্থিত সংস্করণও আসতে পারে ইনশাআল্লাহ । ততক্ষণ পর্যন্ত বিদায়।

Advertisements

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s