Category Archives: অধিকার

বিভাগের বোকাঘুড়ি শিক্ষার শূন্য সুতোর নাটাই

floating-schoolপ্রতিষ্ঠার পর থেকে বাংলাদেশে উচ্চশিক্ষা বিস্তারে বিশেষ ভূমিকা রাখছে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়। বিশেষ করে গুণগত দিক থেকে অনেক প্রশ্ন উঠলেও সংখ্যার দিক থেকে বাংলাদেশ তো বটেই, বিশ্বের অনেক দেশের সেরা বিশ্ববিদ্যালয়গুলো থেকে এটি এগিয়ে থাকবে নিঃসন্দেহে। পুরো দেশের প্রায় সব কলেজ, যেগুলো উচ্চশিক্ষার সঙ্গে জড়িত, সেগুলোকে একই ছাতার নিচে এনে পরিচালনা চাট্টিখানি কথা নয়। ফলে আকৃতি ও কলেবরের এ বিশালতা একই সঙ্গে একে যেমন করেছে বৈচিত্র্যময়, তেমনি নানা সমস্যায় জর্জরিত দেশের উচ্চশিক্ষা। বিশেষ করে প্রত্যন্ত অঞ্চলগুলোয় অবস্থিত ক্যাম্পাসে যোগ্যতম শিক্ষকদের যুক্ত হতে এক ধরনের অনীহা লক্ষ করা গেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের রীতি মেনে অনেক অনুষদের পাঠদান চলছে। তার জন্য শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের বরাদ্দকৃত কক্ষগুলোর বৈদ্যুতিক পাখা ঘুরছে। সকাল থেকে বিকাল অবধি বেশ জনসমাগমও হচ্ছে ঠিকই। তবে পাঠদান ও পাঠগ্রহণের মানদণ্ডে সেটি কত দূর এগিয়ে যেতে পেরেছে, তা নিয়ে উত্কণ্ঠা দেদার। Continue reading বিভাগের বোকাঘুড়ি শিক্ষার শূন্য সুতোর নাটাই

অলিম্পিকে চৈনিক সাফল্যের পেছনে রয়েছে যে পৈশাচিকতা

article-0-145294AB000005DC-827_634x800সম্প্রতি ফেসবুকে একটি ছবি অসম্ভব শেয়ার করা হচ্ছে। লাইকখেকো পেইজ আর  বোকা পাব্লিক নানা নাম-ধামে ঐ ছবি একে অন্যের মধ্যে চালাচালি করে ওয়াল থেকে ওয়াল গরম করে চলছে। আসলে ক্রীড়া প্রশিক্ষণের নামে শিশুদের উপর পৈশাচিক নির্যাতন চালানোর খণ্ডচিত্র এটি। এখানে দুটি নোংরা ফেটিশ বিষয় কাজ করে স্যাডিস্ট চৈনিকদের মধ্যে। Continue reading অলিম্পিকে চৈনিক সাফল্যের পেছনে রয়েছে যে পৈশাচিকতা

দিস ইজ বেয়াদবি, এক্কেবারে বেয়াদবি তাও বাজেট নিয়ে

displayপাস হয়ে হয়ে গেলো স্বনির্বাচিত সরকারের প্রথম বাজেট। বিভিন্ন অর্থনৈতিক বিশ্লেষকের ঝাঁঝালো মন্তব্য। টিভি ক্যামেরার ফোকাস, স্ট্রিল ক্যামেরার ফ্লাশবাল্বের আলোয় মন্ত্রীমহোদয়ের চুলবিহীন চকচকে মাথাটা আরো গ্লেস দিচ্ছে। এই সময় কিছু অপছন্দের প্রশ্ন করে উনাকে বিব্রত করতে চাইনি। কারণ গণ্ডমুর্খ হলেও আমরা জানি দিস ইজ বেয়াদপি, এক্কেবারে  বেয়াদপি। তবুও আপনি নিজের নেত্রীর ইচ্ছায় আমাদের মতামতের তোয়াক্কা না করে স্বনির্বাচিত সাংসদ তারপর মন্ত্রী। অনিচ্ছা এবং নিতান্ত বিরক্তি থাকলেও কিছু প্রশ্নর উত্তর যে আমাদের দিতেই হয়।

* বাংলাদেশের বাজেট মানেই বিদেশী বিনিয়োগ নির্ভরতা। একেকটি দুর্বল মেরুদণ্ডবিশিষ্ট সরকার সময় মত সেটা বাড়িয়ে তাদের মেরুদণ্ড শক্ত করেছে। কিন্তু আপনি এমন কি করলেন যে এবারের বাজেটে  বৈদেশিক বিনিয়োগ অর্ধেক হয়ে গেছে।  Continue reading দিস ইজ বেয়াদবি, এক্কেবারে বেয়াদবি তাও বাজেট নিয়ে

বাঙালি সেকুলারের মন (পর্ব-০১)

murad_05_1282935433_1-1বাঙালি সেকুলারের মন। অনেকটা বর্ষার আকাশে দেখা রংধনুর মত। হটাৎ আলো ঝলমল করে উঠে তারপর মিলিয়ে যায়। এর সাথে রাস্তার পাশের সুলভ শৌচাগারেরও অনেক সাদৃশ্য আছে। ছবিতে সাইনবোর্ডে দেখতে সুন্দর, কাছে গেলে দুর্গন্ধ, বমি ঠেলে আসতে চায়। এখানে নামটা শৌচাগার মলত্যাগ-মুত্রবিসর্জন সবাই চলে সেখানে। আর নামটা সেকুলার সেখানে ঈদের সময় ইসলাম, পুজোয়-বৈশাকে হিন্দুয়ানি কিংবা বড় দিনের কেকটাও বেশ মজা করে খাওয়া চলে। দোল পুর্নিমার দিনে বৌদ্ধ মন্দিরে গিয়ে সুন্দরী ভিক্ষুনীদের দিকে ক্ষুধার্ত শকুনের মতো শ্যেন দৃষ্টি দিতেও বাঙালি সেকুলারের জুড়ি নাই।

ঈদের দিনে তেমন সুবিধা করতে না পারায় তারা দূর্গোৎসবের কুমারি পূজার দিন ডি.এস.এল আর নিয়া ভিড় জমায় মণ্ডপে মণ্ডপে। দোল খেলতে গিয়ে চোখ মেলে চারদিকে দেখে কোথায় মেয়েদের জটলাটা। তারপর শুধু বালাম পিচকারি, তুনে মুঝে মারি বাজার অপেক্ষা। এরপর টিভি টকশো, পোশাকের উগ্রতায় তারা এককাঠি সরেস, নারী অধিকারের নামে কথার তুবড়ি ছোটে তাদের। কিন্তু কখনো তাদের কথায় আসেনি শহরে মেয়েদের জন্য Continue reading বাঙালি সেকুলারের মন (পর্ব-০১)

এফ.জি. এম তথা নারীযৌনাঙ্গচ্ছেদ নিয়ে ধর্মীয়-সামাজিক অবস্থানের বিপরীতে পশ্চিমা অপপ্রচার

বলতে চাইছি পশ্চিমের নারী বিষয়ক আলোচনায় স্থান পাওয়া কুখ্যাত Female genital mutilation (FGM) এর কথা। মধ্যযুগের ক্যাথলিক ধর্মাচারের বিরুদ্ধে প্রোটেস্ট্যান্টরা প্রটেস্ট করার অন্যতম মূল কারণ এটা। বিশেষ করে চার্চ নির্ভর ক্যাথলিক ধর্মাচারে মঠের প্রাধান্য দিতে গিয়ে নারী-পুরুষের স্বাভাবিক সম্পর্ককে অস্বীকার করে বৈরাগ্যবাদ গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে। অনেক নির্মম ও অপমানজনক হলেও সত্য যে এই সময় থেকেই বিকৃত যৌনাচার যেমন Bisexuality, Lesbianism, Gay,এর পাশাপাশি উদ্ভব ঘটেছিলো নেক্রোফিলিকপেডোফিলিক বর্বরদের। নৃ-বিজ্ঞানের বাইরে থেকেও যাঁরা যৌনতার উদ্ভব ও বিকাশ তথা ইতিহাস নিয়ে আগ্রহ দেখান কিংবা কিঞ্চিত পড়ালেখা করেন তাদের বিষয়টা জানা থাকার কথা বিকৃত রুচির উদ্ভাবন হয়েছে সামাজিক বাধা কিংবা নৈরাজ্যকে উপজীব্য করেই। Continue reading এফ.জি. এম তথা নারীযৌনাঙ্গচ্ছেদ নিয়ে ধর্মীয়-সামাজিক অবস্থানের বিপরীতে পশ্চিমা অপপ্রচার

টেস্ট ক্রিকেটে ব্রাহ্মণ্যবাদঃ একজন প্রত্নতাত্ত্বিকের অনুভব।

০১.
প্রত্নতত্ত্ব পড়তে গিয়ে একটা বিষয় বার বার মনে হয়েছে মানুষ কেনো যেনো পেছনের দিকে যাচ্ছে। এই দেখুন না পাথর যুগের মানুষ জামা-কাপড় পরতো না, এখনো সিনেমার পর্দা থেকে সমুদ্রের ধার এমুনকি ঢালাই করা পুকুরগুলোতে পর্যন্ত সব জামা কাপড় ছাইড়া কিছু মানুষ ঝাঁপ দিতে পারলে বাঁচে। সৃষ্টির আদিকালে মানুষ জবরদস্তি করে একজনের চিন্তার ভার আরেকজনের উপর ছাইড়া দিতো। এখনো দেখুন কেম্নে চাপাইয়া দিবার চায়। একটু অপছন্দ হৈলে তুই ভাদা-ভাকুর, তুই ছাগু, তুই রাজাকার, তুই পাকি, তুই ভাদা আরো কত্ত কী ট্যাগের জ্বালায় ব্যাগ ভর্তি হৈয়া যায়। আগে মানুষ রান্না জানতো না মাংস পুড়াইয়া খাইতো, লতাপাতার রস খাইয়া আগুনের পাশে ধেই ধেই কৈরা নাচাকুদা করতো। বাহরে বাহ একটা আধপোড়া ছাগল কিংবা গরু লগে কিছু অগ্নিজল। লে গপাপগ গিল তার্পর শুরু কৈরা দে বাংলে কে পিছে হ্যায় তালা, ঘুচু কাঁহা সে ম্যায় সালা। ওরে থাম আমার তো কান ঝালাপালা। Continue reading টেস্ট ক্রিকেটে ব্রাহ্মণ্যবাদঃ একজন প্রত্নতাত্ত্বিকের অনুভব।

ইতিহাসের ধারায় মিশরের গণহত্যা

আন্দোলনকারীর আর্তচিৎকার

মিসরের স্বৈরশাসক হোসনি মোবারকের পতনের পর যে প্রশ্নটি বড় হয়ে দেখা দিয়েছিল, তা হচ্ছে মিসরের রাজধানী কায়রোর তাহরির স্কয়ারের বিপ্লব কি শেষ পর্যন্ত তার লক্ষ্যে পৌঁছুতে পারবে? যারা সামরিক-বেসামরিক সম্পর্ক নিয়ে কাজ করেন, তারা জানেন সেনাবাহিনী একবার ক্ষমতা নিলে সে দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার প্রক্রিয়া পিছিয়ে যায়। মিসরের ক্ষেত্রে এমনটিই হতে যাচ্ছিল। ইতিহাস সাক্ষী দেয়, অনেক বিপ্লবই তার লক্ষ্যে পৌঁছতে পারেনি। ফ্রান্সের সাধারণ কৃষকরা রুটির দাবিতে ১৭৮৯ সালে ভার্সাই দুর্গের পতন ঘটিয়ে ফরাসি বিপ্লবের সূচনা করেছিলেন। কিন্তু এরপরের চার বছরের ইতিহাস অনেক করুণ। সেখানে সন্ত্রাসের রাজত্ব কায়েম হয়েছিল। আর এর মধ্য দিয়ে ১৭৯৯ সালে নেপোলিয়নের একনায়কতন্ত্রী শাসন শুরু হয়েছিল। ফরাসি বিপ্লব রাজতন্ত্রের পতন ডেকে আনলেও নেপোলিয়ন নিজেকে সম্রাট হিসেবে ঘোষণা করে (১৮০৪)সেই রাজতন্ত্রই আবার চালু করেছিলেন। Continue reading ইতিহাসের ধারায় মিশরের গণহত্যা

পিনাকী, পুনম পাণ্ডে কিংবা একজন মেহজাবিন চৌধুরী আর বাংলার Bumপন্থা

1044350_677085948983955_947107735_n
আলোচিত সেই র‌্যাম্পে মেহজাবিন

তব্দা খাইছেন!! না এখনি খাইয়েন না। আগে পুরোটা পড়েন তারপর খাইয়েন, নাইলে না। পান্তা ভাতে ঘি এর মতো নিতান্ত তিনটি ভিন্ন ধারার চরিত্র কিভাবে এক সরলরেখায় এলো? বলতে চাইছি সমসাময়িক কিছু ঘটনা এই তিনটি ভিন্ন চরিত্রকে একই সরল রেখায় এনে দাঁড় করিয়েছে। তবে আমজনতার জন্য এই তিনজনের পরিচয় একটু বলে নেয়া ভালো। সামু ব্লগে পিনাকী নিজের পরিচয়টা দিয়েছেন এভাবে ‘চিকিসক, লেখক। কন্ট্রিবিউটিং এডিটর, আমাদের অর্থনীতি’।থাক উনার পরিচয় নিয়ে আলু পটল না মাখিয়ে পুণম পাণ্ডেতে যাই। পিনাকী থেকে পুনম পাণ্ডে এই যাত্রাপথে প্রথম আলো আমাদের পরিচয় করিয়ে দিচ্ছে বিজয় মালিয়ার কিংফিশার মডেল হান্টে প্রাপ্ত ক্যালেন্ডার গার্ল/প্লেবয় কভার গার্ল/ হটি-নটি পুনম পাণ্ডের সাথে যিনি নাকি ভারতীয় দল বিশ্বকাপ জিতলে নিজের প্রায় দেখিয়ে দেওয়া শরীরের ঢেকে থাকা কিঞ্চিত পরিমাণ অংশও জনতার সামনে উন্মুক্ত করে দেবেন। আর লাক্স চ্যানেল আই সুপার স্টার মেহজাবিন চৌধুরী অনেক আগে থেকেই ফেসবুক সেলিব্রেটিদেরে ঈর্ষার কারণ। তাদের ধারণা এতো গালি ঝাড়লাম, শুশীল সাজলাম, চেতনা ছড়াইলাম লাভ হৈলো না। এই লিকলিকে দেহের হাল্কা-পাতলা সেদিনের মেয়েটা কি এমন তেঁতুল ছড়াইলো যে পুলামাইয়্যা নির্বিশেষে তার ফলোয়ার হৈয়া লালা ঝরাতে শুরু করলো। তবে আজকে যে নাটকটি আমি তুলে ধরতে চেয়েছি তার অঙ্ক দুটি। Continue reading পিনাকী, পুনম পাণ্ডে কিংবা একজন মেহজাবিন চৌধুরী আর বাংলার Bumপন্থা

রাতজাগা ক্ষতিকর নয় আসুন রাত জাগি

1125759003_3580Germany, Emmering, Teenage girl sleeping in computer labসৃষ্টিশীল মানুষের সাথে রাতের ঘূম আর সমাজের বৈরিতা চিরকাল। এই কথা কারোক্ষেত্রে জন্মলগ্ন থেকে ধ্রুব সত্য হয়ে যায় কেউবা ভাব ধরেন। তবুও এক ধরণেরঅবস্থা তৈরি হয়েছে যেখানে মেনে নিতেই হচ্ছেসৃষ্টিশীলতা আর নিয়মানুবর্তিতা দুটি ভিন্ন গ্রহের উপমা। আমরা যারা রাত জেগে কাজ করি পরিবারের সবার তাদের নিয়ে চিন্তার অন্ত নেই। কিন্তু এবার তাদের চিন্তাথেকে মুক্তির পথ বাতলে দিয়েছে মাদ্রিদ বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি বিশ্ব বিদ্যালয়। ডেইলি মেইলে প্রকাশিত একটি নিবন্ধে এমনি দেখতে পেলাম। সেখানে মানুষের রাত জাগা নিয়ে এক চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছেন উদ্দিষ্ট গবেষকগণ। Continue reading রাতজাগা ক্ষতিকর নয় আসুন রাত জাগি

শিল্পাচার্য জয়নুলের নবান্ন ক্রল পেইন্টিং

image_34664পেইন্টিং বিভিন্ন ধরণের হয়। এগুলোর নামকরণের ক্ষেত্রেও তাই ভিন্নতা লক্ষ  করা যায়। ক্রল পেইন্টিং নিয়ে বিস্তৃত আলোচনা করা একজন প্রত্নতত্ত্বের শিক্ষার্থীর জন্য  বেশ কঠিন। তবুও জয়নুলের নাম শোনর পর থেকে অনেক আগ্রহ জন্মেছিলো এই বিষয়টি কি একটু জানবো। আর জানলে তা আগ্রহীদের জন্য শেয়ার করবো। আভিধানিকভাবে ক্রল পেইন্টিংকে সঙ্গায়িত করার ক্ষেত্রে অনেকগুলো অভিধা লক্ষ করা যায়। এখানে প্রকারতাত্ত্বিক ও গাঠনিক দিককে অনেক বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়ে থাকে। বিশেষ করে কি ধরণের উপাদানের উপর স্ক্রল অংকন করা হবে। আর তা আঁকতে কি ধরণের রঞ্জক উপাদান ব্যবহৃত হবে তা অবস্থা বিশেষে অনেক বেশি গুরুত্ববহ হয়ে ওঠে।  আমরা অভিধানের পাতায় দৃষ্টি দিয়ে পাই……… Continue reading শিল্পাচার্য জয়নুলের নবান্ন ক্রল পেইন্টিং