Category Archives: ইসলামের ইতিহাস

ইতিহাসের ধারাক্রমে ওয়াহাবীবাদ ও আইসিসদের পাশবিকতা (পর্ব-১)

isis-iraqসৌদি আরবের ওয়াহাবিদের সম্পর্কে না জানলে আইসিসের পাশবিকতার নেপথ্যে থাকা কারণগুলো অজ্ঞাতই থাকবে, ঠিক এমনটিই বলতে চাইছে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক জনপ্রিয় অনলাইন মাধ্যম হাফিংটনপোস্ট। ইরাকে আইসিসের নাটকীয় উত্থানে পশ্চিমের অনেকেই আতঙ্কিত এমনটাই বর্তমান মিডিয়ায় চটকদার সংবাদ হিসেবে উপস্থাপিত হচ্ছে।কিন্তু মূল বাস্তবতা কী ? Continue reading ইতিহাসের ধারাক্রমে ওয়াহাবীবাদ ও আইসিসদের পাশবিকতা (পর্ব-১)

Advertisements

বায়তুল্লাহ শরীফ বা কাবাঘর সংশ্লিষ্ট ঐতিহ্য নিদর্শন ধ্বংসের নেপথ্যে

কাবা প্রাঙ্গনের সাম্প্রাতিক সম্প্রসারণ

সাম্প্রতিক সময়ে দীর্ঘ অধ্যয়ন করছি বিভিন্ন জিওনিষ্ট কাল্ট নিযে। ফ্রিম্যাসনারি চক্রের উপর একটি প্রবন্ধ লিখতে গিয়ে অনেকটা আগ্রহী হয়েছিলাম তাদের সম্পর্কে। প্রথমে মনে হলো কি এক আজগুবি গুপ্তগোষ্ঠী, কি তাদের দৌড়ঝাঁপ, কতোই বিস্তৃত তাদের কর্মযজ্ঞ। পরিশেষে বুঝলাম হিরাম আবিফ কৃত্যের সেকেলে কুসংস্কার আঁকড়ে এরা এখনো মানুষের ক্ষতি করতে পারলেই খুশি হয়। বিধবার সন্তান হিরাম আবিফের কাছে সলোমন টেম্পলের কি নকশা ছিলো সেটা জানিনা কিন্তু তাদের অন্তরে বদ্ধমূল ধারণ যেভাবেই হোক ভাংতে হবে মসজিদুল আকসা। সেখানেই তাদের ফিলোসফারস স্টোন আছে, সেখানকার কুব্বাতুস সাখরাকে উড়িতে দিলেই দেখা মিলবে অল্টার অব ডেভিডের। যাইহোক বিষয় সেটা নয়। এই ফ্রিম্যাসনদের সম্পর্কে পড়তে গিয়েই জিওনিস্ট কাল্টে বেনজিন চিহ্নের গুরুত্ব সম্পর্কে জানতে পেরেছিলাম। বাংলায় একে আমরা ষড়ভুজ বা ইংরেজিতে হেক্সাগন বলতে পারি। অবাক বিস্ময়ে লক্ষ করা যাচ্ছে Continue reading বায়তুল্লাহ শরীফ বা কাবাঘর সংশ্লিষ্ট ঐতিহ্য নিদর্শন ধ্বংসের নেপথ্যে

মধ্যযুগের ঢাকায় বিদেশিরা

image_1324_368797ঢাকা সুপরিচিত শহর হলেও পুরনো ও ঐতিহ্যবাহী মহানগর হিসেবেও খ্যাতিমান। ১৬১০ খ্রিস্টাব্দে মোগল সম্রাট জাহাঙ্গীরের নামানুসারে ঢাকার নামকরণ করা হয়েছিল, তবে মোগল রাজধানী ঢাকায় প্রথম সুবাদার ইসলাম খান (১৬১০-১৬১৩ খ্রি.) এখানে আসার আগে থেকেই এই শহরের অস্তিত্ব থাকার কথা মির্জা নাথানের ‘বাহারিস্তান-ই-গায়বি’তে সুস্পষ্টভাবে বর্ণিত আছে। নতুন এই রাজধানীতে বিদেশিরা বিপুল সংখ্যায় যে আসবে, তা স্বাভাবিক। কিন্তু রাজধানী হওয়ার আগেও জনপদ হিসেবে ঢাকার অস্তিত্ব থাকায় বিদেশিদের আগমন ঘটা অস্বাভাবিক ছিল না। মানসিংহের আমলের দুর্গ ইসলাম খানের আগে থেকেই ছিল এবং সম্রাট আকবরের আমলে মোগল পক্ষের এই সমরকুশলী নিজেও বাংলা অঞ্চলের মানুষ ছিলেন না, কাজেই সামরিক গুরুত্বের কারণে রাজধানী স্থাপনের আগেও কিছু না কিছু বিদেশি ঢাকায় এসেছিলেন। ঢাকায় বিদেশিদের আগমনের সুস্পষ্ট লিখিত ঐতিহাসিক বৃত্তান্ত মোগল যুগ থেকেই পাওয়া যায়। Continue reading মধ্যযুগের ঢাকায় বিদেশিরা

সৌদি রাজপরিবারের ইতিহাস

abdull-1024x682সৌদি আরব হলো কোনো ব্যক্তির নামে প্রতিষ্ঠিত পৃথিবীর একমাত্র মুসলিম দেশ। অন্য কোনো মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশ কোনো ব্যক্তির নামে প্রতিষ্ঠিত হয়নি। রিয়াদের নিকটস্থ দিরিয়া নামের একটি কৃষিবসতির প্রধান ছিলেন মুহাম্মদ বিন সৌদ। এই উচ্চাভিলাষী মরুযোদ্ধা ১৭৪৪ সালে আরবের বিখ্যাত ধর্মীয় নেতা মুহাম্মদ বিন ওয়াহাব [ওয়াহাবী মতবাদের প্রতিষ্ঠাতা]-এর সাথে মৈত্রী চুক্তি করে “দিরিয়া আমিরাত” গঠন করেন। তুরস্কের উসমানিয়া খিলাফতের বিরুদ্ধে শিরক-বিদাত পালনের অভিযোগে এই দুজন ঐক্যবদ্ধ হয়ে যুদ্ধ শুরু করেন। ওই “দিরিয়া আমিরাত”-ই বিশ্বের প্রথম সৌদি রাজ্য/আমিরাত। মুহাম্মদ বিন সৌদ তার পুত্র আবদুল আজিজের সাথে মুহাম্মদ বিন ওয়াহাবের মেয়ের বিয়ে দেন। এভাবেই সৌদ পরিবার ও ওয়াহাবী মতবাদের মিলনযাত্রা শুরু হয়। ১৭৬৫ সালে মুহাম্মদ বিন সৌদ-এর মৃত্যু হলে তার ছেলে আবদুল আজিজ দিরিয়ায় ক্ষমতাসীন হয়।

এই আবদুল আজিজ তত্কালীন বিশ্বের সাম্রাজ্যবাদী মোড়ল ব্রিটেনের সাথে হাত মিলিয়ে তুরস্কের খলিফাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ চালাতে থাকে। শ্বশুর ইবনে ওয়াহাবের ধর্মীয় মতবাদকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করে তথাকথিত শিরক-বিদাত উচ্ছেদের নামে ব্রিটিশদের সাথে তুর্কি খিলাফত ধ্বংসের কাজে লিপ্ত হয় আবদুল আজিজ। ১৭৯২ সালে মুহাম্মদ বিন ওয়াহাবের মৃত্যু হয়। ১৮০১/২ সালে আবদুল আজিজ তুর্কি খিলাফতের কাছ থেকে ইরাক দখল করে হজরত আলী (রা.) ও হজরত হুসেন (রা.)-এর মাজার শরিফ ভেঙে ফেলে। এর প্রেক্ষিতে ১৮০৩ সালে একজন শিয়া মুসলিম আজিজকে দিরিয়ায় আসরের নামাজরত অবস্থায় হত্যা করে।  Continue reading সৌদি রাজপরিবারের ইতিহাস

ঘুরে আসতে পারেন ইদ্রাকপুর জলদুর্গ

আনুমানিক ১৬৬০ সালের দিকে বাংলার সুবাদার মীর জুমলা নির্মিত ইদ্রাকপুর দুর্গটি ঢাকার দক্ষিণ-পশ্চিম দিকে ইছামতী নদীর পূর্ব তীরে মুন্সিগঞ্জ জেলা শহরে অবস্থিত। বর্তমানে নদী দুর্গ এলাকা থেকে অনেক দূরে সরে গেছে এবং পার্শ্ববর্তী এলাকায় জনবসতি গড়ে উঠেছে। নদীপথ শত্রুর আক্রমণ থেকে নিরাপদ রাখতে নির্মিত ইদ্রাকপুর জলদুর্গটি পূর্ব ও পশ্চিমে দু’ভাগে বিভক্ত। পূর্ব অংশ আয়তাকার এবং পশ্চিমের অসম আকৃতির দুটি অংশ মিলিত হয়ে সম্পূর্ণ দুর্গটি নির্মিত হয়েছে। Continue reading ঘুরে আসতে পারেন ইদ্রাকপুর জলদুর্গ

সৈয়দ ইসমাইল হোসেন শিরাজী জীবন ও কর্ম

উনিশ শতকের শেষভাগে বাঙালি মুসলমান সমাজে নবজাগরণের যে প্রচেষ্টা শুরু হয়েছিল তাতে সমকালীন বিভিন্ন শ্রেণী ও পেশার মানুষ যুক্ত হয়েছিলেন। কোনো সন্দেহ নেই যে সমকালীন আর্থসামাজিক-রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে এ নবজাগরণের প্রয়োজন ছিল অপরিহার্য। এটাও অনস্বীকার্য যে, এ প্রচেষ্টায় সুফল ফলেছিল এবং বাঙালি মুসলমানের সার্বিক অবস্থার উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন সাধিত হয়েছিল। এ প্রসঙ্গে আমরা ১৮৫৭ সালের ‘সিপাহি বিপ্লব’ বা উপমহাদেশের প্রথম স্বাধীনতার যুদ্ধের কথা স্মরণ করতে পারি।
এটা ঠিক যে, এতে মুসলমানদের ভূমিকা ছিল প্রধান ও অংশগ্রহণ ছিল ব্যাপক, কারণ তারাই ছিলেন শাসক জাতি এবং ক্ষমতা হারানোর জন্য তাদের ভেতরে বিরাজ করছিল প্রচণ্ড ক্ষোভ। এর বহিঃপ্রকাশ এর আগে নানাভাবে ঘটেছে। কিন্তু এ বিদ্রোহের বারুদে যিনি সর্বপ্রথম অগ্নিসংযোগ করেছিলেন, তিনি ছিলেন ব্রিটিশ সেনাবাহিনীর ভারতীয় হিন্দু সিপাহি—মঙ্গল পাণ্ডে। Continue reading সৈয়দ ইসমাইল হোসেন শিরাজী জীবন ও কর্ম